এই পরিবর্তনের ডাক একটা ভাঁওতা; চাই বাঙ্গালী হিন্দুর দল

একদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মাদ্রাসার জন্য ৫০ কোটি বরাদ্দ করলেন, অন্যদিকে শমীক ভট্টাচার্য্য মাদ্রাসা শিক্ষকদের দাবিদাওয়ার সমর্থনে গলা ফাটাচ্ছেন।

যারা ক্ষমতা দখলের জন্য যেকোনো পর্যায়ে সমঝোতা করতে পারে, তারা ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্যও যেকোনো পর্যায়ে সমঝোতা করতে দ্বিতীয়বার ভাববে না। বঙ্গ রাজনীতিতে এদের বিকল্প চাই। হাতে সীমিত সময়, তবুও এছাড়া সমাধানের অন্য কোনও পথ নেই। আমি ক্ষোভ প্রকাশ করে বসে থাকায় বিশ্বাস করি না। মা কালীর আশীর্বাদ থাকলে আমরাই এই পথের সূচনা করতে চলেছি।

আমাদের ভবিষ্যত, সংগঠনের ভবিষ্যত নিয়ে ভাবিত ন‌ই। বাঙ্গালী হিন্দু জাতির ভবিষ্যত‌ই আমাদের সকলের ভবিষ্যত। আগামী নির্বাচনের তুলনায় আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যত নিয়েই ভাবতে চাই। ২০২৬ এ যে দল‌ই ক্ষমতায় আসুক না কেন, রাজ্যের তৎকালীন বিধানসভায় বাঙ্গালী হিন্দুদের স্বার্থে একটা শক্তিশালী প্রেসার গ্রুপ যদি না দাঁড় করানো যায়, তবে এই লড়াই অনেক অনেক কঠিন এবং অসম হয়ে যাবে। রাজনীতিতে বিশ্বাস বা ভরসা নয়, একমাত্র ‘চাপ’ ফলপ্রসূ হয়। তাই কোনও দল অথবা নেতার উপরে নয়, নিজেদের ক্ষমতার উপরে ভরসা রেখেই এগোতে চাই। তাই এই নির্বাচনেই বীজ রোপন হবে।

We are soldiers by choice, we know that a soldier lives by chance but we know that soldiers always write the history.